স্মার্টনেস ও ইন্টেলিজেন্স দুইটিই কাছাকাছি জিনিস হলেও, কিছুটা ভিন্নতা তো রয়েছেই। কিন্তু কেমন হয়, যদি এ দুইটি জিনিস একসাথে যুক্ত হয়? পুরো জমে যাবে না ব্যাপারটা? ঠিক তেমনটাই ঘটতে চলেছে আমাদের নিত্যদিনের বিনোদনের অনুষঙ্গ টিভির ক্ষেত্রে।

সাম্প্রতিক সময়ে ঘরে ঘরে স্মার্ট টিভির প্রচলন তো শুরু হয়েছেই। এবার সেই টিভিই হয়ে উঠবে আরো বেশি স্মার্ট, আরো প্রখর বুদ্ধিমত্তার অধিকারী। কেননা স্মার্ট টিভিতে এবার প্রয়োগ ঘটতে চলেছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের।

ঘোষণাটি প্রথম এসেছিল ২০১৮ সালের সিইএস ট্রেড শোতে, যেখানে তিনটি টিভি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান প্রথম জানিয়েছিল তাদের নতুন মডেলের স্মার্ট সেটগুলোতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সংস্থাপনের কথা। এবং ধীরে ধীরে সেটি বাস্তবায়িতও হতে চলেছে।

এবার টিভি হতে চলেছে আরো স্মার্ট; Image Source: LG

গুগলের সাথে এলজি ও সনির পূর্ব সম্পর্ক তো ছিলই। এবার তারা তাদের নতুন কিছু টিভিতে বসাতে চলেছে এ সার্চ জায়ান্টের ভয়েস কম্পিউটিং প্রযুক্তি, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্স। এর ফলে টিভি ব্যবহারকারীদের এখন আর তাদের রিমোট কন্ট্রোলের নির্দিষ্ট বোতাম খুঁজে বের করতে গিয়ে গলদঘর্ম হতে হবে না। বরং তারা তাদের কণ্ঠস্বর ব্যবহার করেই পাল্টে দিতে পারবে চ্যানেল, চালু করতে পারবে তাদের গেম কনসোল, কিংবা দেখতে পারবে বিভিন্ন ছবি বা ভিডিও।

এদিকে স্যামসাং বিশেষ গুরুত্বারোপ করছে ভিডিও রেজোলিউশন নিয়ে। অনেকেই নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, স্যামসাং নিয়ে আসতে চলেছে এখন পর্যন্ত সর্বকালের সবচেয়ে উন্নতমানের ভিডিও রেজোলিউশন সম্বলিত হাই-এন্ড ৮কে টেলিভিশন। কিন্তু এখন সমস্যা হলো, এত উচ্চ মাত্রার রেজোলিউশনে তো ভিডিও বানায় না অধিকাংশ নির্মাতাই। এমনকি ব্লু-রে, ১০৮০পি কিংবা ৪কে ভিডিও-ও তো নতুন ৮কে-র চেয়ে অনেক পিছিয়ে রয়েছে। তাহলে কী লাভ ৮কে সাপোর্টেড টিভি ব্যবহার করে, এমন প্রশ্ন ছিল অনেকের মনেই।

এ সমস্যার সমাধান নিয়েও হাজির হচ্ছে স্যামসাং। তারা তাদের টিভিগুলোতে বসাতে চলেছে এমন একটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, যেটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে যেকোনো অনুষ্ঠানের বিদ্যমান ভিডিও কোয়ালিটিকে কয়েক ধাপ এগিয়ে নিতে পারবে। অর্থাৎ আপনার চালানো ভিডিওটির মূল রেজোলিউশন যদি ৭২০পি হয়, সেটিকে এ টিভি বানিয়ে দেবে ১০৮০পি। আবার আপনার ভিডিওর রেজোলিউশন মূলত ৪কে হলেও, এ টিভিতে দেখার সময় সেটিকে আপনার ৮কে-ই মনে হবে।

স্যামসাংয়ের ৮কে রেজোলিউশনের টিভি; Image Source: Samsung

এবার তবে চলুন পাঠক, এক নজরে জেনে নিই অদূর ভবিষ্যতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কীভাবে বদলে দিতে চলেছে আপনার টিভি দেখার অভিজ্ঞতা।

  • এলজির গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট পরিচালিত টিভিগুলোতে আপনি শুধু চ্যানেলই যে বদলাতে পারবেন তা না, বরং মুখে কোনো অনুষ্ঠানের নাম বলে সেটি যে চ্যানেলে দেখানো হচ্ছে, সেখানেও চলে যেতে পারবেন।
  • কোনো অনুষ্ঠান দেখতে দেখতে আপনি আপনার টিভিকে জিজ্ঞেস করেই ওই অনুষ্ঠান সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর জেনে নিতে পারবেন, যেমন অনুষ্ঠানটি কোন ঘরানার, এটির কলাকুশলী কারা, এর পুনঃপ্রচার কখন হবে ইত্যাদি।

কোনো অভিনেতাকে মনে ধরেছে, কিন্তু জানেন না সে কে? টিভিই আপনাকে জানিয়ে দেবে তার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য; Image Source: LG

  • কোনো পৃথক অ্যাপ লঞ্চ না করেও টিভিকে জিজ্ঞেস করেই আপনি জেনে নিতে পারবেন কোনো খেলার সর্বশেষ স্কোর, সর্বশেষ আবহাওয়া বা নিউজ আপডেট ইত্যাদি।
  • আবহাওয়া বার্তা জানার ক্ষেত্রে আপনাকে কোনো নির্দিষ্ট “ফ্রেজ” ব্যবহারের প্রয়োজন পড়বে না। অর্থাৎ “ওয়েদার আপডেট অব ঢাকা, বাংলাদেশ” জাতীয় কিছু বলতে হবে না। টিভি নিজে থেকেই আপনার বর্তমান লোকেশন জেনে নিয়ে সে অনুযায়ী ফলাফল হাজির করবে আপনার সামনে।
  • আরো বেশ কিছু চমকপ্রদ কাজও করে দেবে এলজি টিভিতে সংস্থাপিত অ্যাসিস্টান্ট। যেমন ধরুন, আপনি ট্রেডমিলে দৌড়াচ্ছেন। এখন আপনার মনে হলো, বর্তমানে যে গতিতে আপনি দৌড়াচ্ছেন, এই গতির সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কোনো একটি ভিডিও আপনার সামনে থাকলে আপনার দৌড়ানোটা আরো বেশি উপভোগ্য হতো। আপনার টিভি আপনার জন্য ঠিক সে ব্যবস্থাই করে দেবে। হয়তো সে আপনার গতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি বনের “মুভিং ভিডিও” চালিয়ে দিল, যা দেখলে আপনার মনে হবে, আপনি বুঝি সত্যিই ওই বনের মাঝ দিয়ে দৌড়ে চলেছেন!

বর্তমানে প্রায় সব অ্যান্ড্রয়েড টিভিতেই রয়েছে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট; Image Source: Android Police

এদিকে থ্রি স্ক্রিন সলিউশনস নামের একটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা গবেষণা প্রতিষ্ঠান দৃঢ়প্রতিজ্ঞ আপনার টিভি দেখার অভিজ্ঞতাকে আরো মসৃণ, ঝামেলামুক্ত ও উপভোগ্য করে তুলতে। তারা চাইছে এন্ড-টু-এন্ড প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে, মেশিন লার্নিং পদ্ধতিকে এক নতুন ধাপে নিয়ে যেতে।

কী করতে চায় তারা? সহজ কথায়, আপনাকে যেন আপনার পছন্দের অনুষ্ঠান খুঁজে বের করতে গিয়ে আর ঝামেলায় পড়তে না হয়, তা নিশ্চিত করতে চায় তারা।

অনেক সময়ই দেখা যায়, আপনি এমন একটি অনুষ্ঠান দেখতে আগ্রহী, যার টাইটেল তো নয়ই, এমনকি অভিনেতা-অভিনেত্রী কিংবা পরিচালক-কাহিনীকার, কারো নামই জানেন না আপনি। আপনি কেবল জানেন ওই অনুষ্ঠানের নির্দিষ্ট একটি দৃশ্য বা বিষয়বস্তু সম্পর্কে, যার মাধ্যমে আপনি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন অনুষ্ঠানটির ব্যাপারে।

সাধারণত এভাবে কোনো অনুষ্ঠান খুঁজে বের করা দুঃসাধ্য ব্যাপার। বর্তমানে একটি টিভি যতই স্মার্ট হোক না কেন, তাকে কিছু সূত্র তো দিতে হবেই, যাতে সে আপনার কমান্ড অনুযায়ী অনুষ্ঠানটি বের করে দিতে পারে। কিন্তু আপনি যদি কিছুই বলতে না পারেন, তাহলে কীভাবে হবে!

তবে এ সমস্যা চিরতরে দূর করে দিতে চলেছে থ্রি স্ক্রিনস সলিউশনস। তারা তাদের মেশিন লার্নিংকে কাজে লাগিয়ে একটি ভিডিওর প্রতিটি ভিজ্যুয়াল ও অডিয়ালকে বিশ্লেষণ করবে। ওই ভিডিওতে যত শব্দ শোনা যায়, যত মানুষের মুখ দেখা যায়, যত টেক্সট দৃশ্যমান হয়, যত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক বাদে, যত লোগো দেখা যায় – সব কিছুকেই বিশ্লেষিত করবে তারা। এভাবে ভিডিওটির প্রতিটি মুহূর্ত সম্পর্কেই পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জেনে যাবে তারা।

ঘুচতে চলেছে পছন্দের অনুষ্ঠান খুঁজে বের করার যত ঝক্কি; Image Source: Yahoo Finance

এরপর যদি আপনি আর কিছু না হোক, ওই ভিডিওর যেকোনো একটি দৃশ্যের বর্ণনা, যেকোনো একটি সংলাপ, যেকোনো একটি বিষয়বস্তু, কিংবা যেকোনো একটি টেক্সটের কথাও মনে করে আপনার টিভিকে বলতে পারেন, সে আপনাকে আপনার কাঙ্ক্ষিত ভিডিওটি সফলতার সাথে খুঁজে দিতে পারবে।

অর্থাৎ আপনি কোনো অনুষ্ঠান খুঁজতে গেলে, “সরি, নো সার্চ রেজাল্ট ফাউন্ড” জাতীয় বিরক্তিকর উত্তর আপনাকে আর পেতে হবে না। প্রযুক্তিটি তৈরি সম্পন্ন হলে এটিকে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টের সাথে যুক্ত করে দেয়া হবে, যেন গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টের মাধ্যমেই সকলে দুর্দান্ত এ পরিষেবাটি লাভ করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here